এক বছরে ৭০ হাজার ৭৮১ জন অভিবাসী ওমান ছেড়ে নিজ দেশে চলে গেছেন

নিউজ বিডিডট নেট :  কূটনৈতিক অস্থিরতা, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের মন্দা ভাব এবং নিজ দেশের নাগরিকদের কর্মসংস্থান করতে অভিবাসীদের ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে দিচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো। সৌদি আরব, কাতার, লেবাননের পাশাপাশি ওমানও সেদিকে নজর দিয়েছে। আর সেই ধারাবাহিকতায় ধীরগতিতে হলেও অভিবাসী শ্রমিকের সংখ্যা কমিয়ে দিচ্ছে দেশটি।

গত এক বছরে ৭০ হাজার ৭৮১ জন অভিবাসী ওমান ছেড়ে নিজ দেশে চলে গেছেন। ওমানের জাতীয় পরিসংখ্যান ও তথ্য কেন্দ্রের (এনসিএসআই) বিশ্লেষণে এ তথ্য উঠে  এসেছে।

দেশটির দেওয়া তথ্য মতে, ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে ওমানে সব মিলিয়ে অভিবাসীর সংখ্যা ছিল ২১ লাখ ৯৭৫ জন, আর ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে এসে এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ৩০ হাজার ১৯৪ জনে।

সে হিসেব অনুযায়ী দেখা গেছে, গত এক বছরে ৭০ হাজার ৭৮১ জন বিদেশি ওমান ছেড়ে চলে গেছেন। যা ওমানে গত দুই বছরে নির্মাণ খাতে কর্মরত মোট অভিবাসী শ্রমিকের ১৭ শতাংশ।

জানা গেছে, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমে যাওয়া, ওমানের অর্থনৈতিক মন্দা, ওমানিকরণ করার বিপরীতে এসব নাগরিকরা ওমান ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন।

সম্প্রতি ওমান থেকে ফেরত এসেছেন চট্টগ্রামের নুরুল আবসার। তিনি ওমানে দীর্ঘ ২০ বছর যাবত বসবাস করে আসছিলেন। ব্যবসার পাশাপাশি তিনি বাংলাদেশ সমিতি ওমানের একজন সিনিয়র সদস্য ছিলেন। কোনো কারণ ছাড়াই তাকে ওমান গোয়েন্দা পুলিশ দেশে পাঠিয়ে দেয়। 

গত এক বছরে নুরুল আবসারের মতো অনেক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীকে কোনো কারণ ছাড়াই বাংলাদেশে ফেরত পাঠিয়ে দিয়েছে ওমান সরকার। আবার অনেকেই এখন আগের মতো ব্যবসা বাণিজ্য না থাকায় স্বেচ্ছায় দেশে চলে এসেছেন।

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinmail

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*